Wednesday, May 15, 2019

বিজয় কীবোর্ড দিয়ে স্বরবর্ণ, ব্যঞ্জনবর্ণ, বিরাম চিহ্ন ও যুক্তাক্ষর লেখার নিয়ম

Graphics school bd logo retina BLOG HomeMS Office 2016বিজয় কীবোর্ড দিয়ে স্বরবর্ণ, ব্যঞ্জনবর্ণ, বিরাম চিহ্ন ও যুক্তাক্ষর লেখার নিয়ম। বিজয় কীবোর্ড দিয়ে স্বরবর্ণ, ব্যঞ্জনবর্ণ, বিরাম চিহ্ন ও যুক্তাক্ষর লেখার নিয়ম। Graphic School Of BangladeshMarch 12, 2019 MS Officebangla key shortcut, bangla ms word shortcut, ms office all keyboard shortcut, ms office all shortcut, ms word helpful key shortcut, what is necessary shortcut আমরা যারা কম্পিউটার দিয়ে কাজ করতে চাই বা করছি তাদের জন্য লেখালেখি করা অতি জরুরী একটা বিষয়। আর আমাদের মধ্যে যারা বাংলায় লেখালেখি করেন তাহলে আপনি অবশ্যই কিছু কিছু সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে জটিল সমস্যাটা হলো স্বরবর্ণ, ব্যঞ্জনবর্ণ, বিরাম চিহ্ন ও যুক্তাক্ষর ব্যবহার করা। তো চলুন জেনেই এই স্বরবর্ণ, ব্যঞ্জনবর্ণ, বিরাম চিহ্ন ও যুক্তাক্ষর আপনি আপনার কম্পিউটার কীবোর্ড দিয়ে কিভাবে ব্যবহার করবেন। আপনাকে বাংলায় লেখার জন্য প্রথমে বিজয় কীবোর্ড ইন্সটল দিতে হবে। বিজয় কীবোর্ড ইন্সটল দেয়ার পর এটিকে ব্যবহারের জন্য সেট করা প্রয়োজন। বিজয় কীবোর্ড এর মাধ্যমে লেখার জন্য আপনাকে দুটি কাজ করতে হবে। প্রথমে বাংলা ফন্ট সেট করতে হবে এবং বাংলা লেখার সফটওয়্যার চালু করতে হবে। এ দুটি কাজের মধ্যে কোন একটি কাজ না করলে বাংলা লেখা যাবে না। বাংলা লেখার সফটওয়্যার চালু করার জন্য কীবোর্ডে প্রেস করুন Ctrl+Alt চাপ দিয়ে ধরে B চাপ দিতে হবে, এখন আপনার কীবোর্ডটি বাংলা লেখার জন্য সেট হয়ে গেছে। সাধারনত SutonnyMJ ফন্টটি বিজয়ে লেখার জন্য বেশি ব্যবহার হয় । যদি আপনার ফন্ট সেটআপটি ঠিক থাকে তাহরে বাংলা বর্ণমালার প্রথম বর্ণটি আসবে, অর্থাৎ অ আসবে । যদি বাংলা থেকে পুনরায় ইংরেজী ফন্টে আসতে চান, তাহলে আবার Ctrl+Alt+B প্রেস করুন এবং ফন্টকে পরিবর্তন করতে যেকোনো একটি ইংরেজী ফন্ট যেমন (Times New Roman/Calibri) সেট করুন। তাহলে আপনি পুনরায় ইংরেজী টাইপ করতে পারবেন। তো চলুন কথা না বাড়িয়ে মূল কথায় আসি। স্বরবর্ণঃ অ = Shift+F >আ = G+F ই = G+D >ঈ = G+(Shift+D) >উ = G+S >ঊ = G+(Shift+S) >ঋ = G+A >এ = G+C >ঐ = G+(Shift+C) >ও = X >ঔ = G+(Shift+X) ব্যঞ্জনবর্ণঃ >ক = J >খ = Shift+J >গ = O >ঘ = Shift+O >ঙ = Q >চ = Y >ছ = Shift+Y >জ = U >ঝ = Shift+U >ঞ = Shift+I >ট = T >ঠ = Shift+T >ড = E >ঢ = Shift+E >ণ = Shift+B >ত = K >থ = Shift+K >দ = L >ধ = Shift+L >ন = B >প = R >ফ = Shift+R >ব = H >ভ = Shift+H >ম = M >য = W >র = V >ল = Shift+V >শ = Shift+M >ষ = Shift+N >স = N >হ = I >ঢ় = P >য় = Shift+W >ৎ = Shift+/ >s = Shift+Q >t = / > u = Shift+7 উপরিক্ত স্বরবর্ণ ও ব্যঞ্জনবর্ণ ছাড়াও আরো কিছু বিরাম চিহ্ন (আ- কার, এ-কার, ও-কার ইত্যাদি) আছে। চলুন জেনে নেওয়া যাক উক্ত বিরাম চিহ্ন ও এগুলোর শর্টকাট সম্পর্কেঃ বিরাম চিহ্নঃ(ছবির সাহায্যে জেনে নেই) এখন আসি যুক্তাক্ষর নিয়ে। আমরা সবাই যুক্তাক্ষর সম্পর্কে জানি। যুক্তাক্ষর মানে একের অধিক অক্ষর দিয়ে কোনো একটি অর্থপূর্ণ শব্দ তৈরি করা। >ক্ত (ক+ত) = J+G+k ; যেমনঃ তক্তা >ক্ষ (ক+ষ) = J+G+(Shift+N) ; যেমনঃ ক্ষমা >হ্ম (হ+ম) = I+G+M ; যেমনঃ ব্রহ্মা >ক্ষ্ম (ক+ষ+ম) = J+G+(Shift+N)+G+M ; যেমনঃ লক্ষ্মী >জ্ঞ (জ+ঞ) = U+G+(Shift+I) ; যেমনঃ অজ্ঞ >ঞ্জ (ঞ + জ) = (Shift+I)+G+U ; যেমনঃ গুঞ্জন >ঞ্চ (ঞ + চ) = (Shift+I)+G+Y ; যেমনঃ চঞ্চল >ব্ব (ব+ব) = H+G+H ; যেমনঃ আব্বা >ত্ত (ত+ত) = K+G+K ; যেমনঃ মত্ত >ত্র (ত+র) = k+Z ; যেমনঃ ত্রাণ >হৃ (হ+ ঋ) = I+ ; যেমনঃ হৃদয় >ঘু (ঘ+ু) = (Shift+O)+S ; যেমনঃ ঘুঘু >হু (হ+ু) = I+S ; যেমনঃ হুংকার >শু (শ+ু) = (Shift+M)+S ; যেমনঃ শুটকি >ক্র (ক+র) = J+Z ; যেমনঃ ক্রন্দন >ন্ত্র (ন+ত+র) = B+G+K+Z ; যেমনঃ মন্ত্র >দ্ধ (দ+ধ) = L+G+(Shift+L) ; যেমনঃ উদ্ধার >দ্ভ (দ+ভ) = L+G+(Shift+H) ; যেমনঃ উদ্ভাবক >ক্স (ক+স) = J+G+N ; যেমনঃ কক্সবাজার >ক্ম (ক+ম) = J+G+M ; যেমনঃ রুক্মিণী >ক্ল (ক+ল) = J+G+(Shift+V) ; যেমনঃ ক্লাস >ঙ্গ (ঙ+গ) = Q+G+O ; যেমনঃ অঙ্গন >চ্ছ (চ+ছ) = Y+G+(Shift+Y) ; যেমনঃ যথেচ্ছা >ক্ক (ক+ক) = J+G+J ; যেমনঃ চক্কর >গ্ধ (গ+ধ) = O+G+(Shift+L) ; যেমনঃ মুগ্ধ >গ্ম (গ+ম) = O+G+M ; যেমনঃ বাগ্মী >গ্র (গ+ র-ফলা) = O+Z ; যেমনঃ গ্রাস >গ্ল (গ+ল) = O+G+(Shift+V) ; যেমনঃ গ্লাস >গ্রু (গ+র+ু) = O+Z+S ; যেমনঃ গ্রুপ >ঙ্ক (ঙ+ক) = Q+G+J ; যেমনঃ অঙ্কন >ঙ্খ (ঙ+খ) = Q+G+(Shift+J) ; যেমনঃ শঙ্খ >জ্জ (জ+জ) = U+G+U ; যেমনঃ লজ্জা >দ্ম (দ+ম) = L+G+M ; যেমনঃ পদ্মা >জ্জ্ব (জ+জ+ব) = U+G+(Shift+I) ; যেমনঃ উজ্জ্বল >ট্ট (ট+ট) = T+T ; যেমনঃ চট্টগ্রাম >ন্ঠ (ন+ঠ) = (Shift+B)+G+(Shift+T) ; যেমনঃ লণ্ঠন >ত্থ (ত+থ) = K+G+(Shift+K) ; যেমনঃ অশ্বত্থ >ত্ম (ত+ম) = K+G+M ; যেমনঃ আত্ম >ত্ত্ব (ত+ত+ব) = K+G+K+G+H ; যেমনঃ তত্ত্বাবধায়ক >ত্রু (ত+র-ফলা+ু) = K+Z+S ; যেমনঃ ত্রুটি >দ্রু (দ+র+ু) = L+Z+S ; যেমনঃ দ্রুত >ধ্রু (ধ+র-ফলা+ু) = (Shift+L)+Z+S >ন্থ (ন+হ) = B+G+(Shift+K) ; যেমনঃ গ্রন্থ >ন্ব (ন+ব) = B+G+H ; যেমনঃ অন্বেষণ >ন্ম (ন+ম) = B+G+M ; যেমনঃ জন্ম >ন্ট্রা (ন+ট+র+া) = B+G+T+Z+F ; যেমনঃ কন্ট্রাক্টর >ন্ড্রু (ন+ড+র+ু) = B+G+K+Z ; যেমনঃ এন্ড্রু >ন্দ্র (ন+দ+র-ফলা) = B+G+L+Z ; যেমনঃ চন্দ্রিমা >ন্ধ (ন+ধ) = B+(Shift+L) ; যেমনঃ অন্ধ >ব্ধ (ব+ধ) = H+G+(Shift+L) ; যেমনঃ উপলব্ধি >ভ্র (ভ+র) = (Shift+H)+Z ; যেমনঃ ভ্রমণ >ভ্রু (ভ+র+ু) = (Shift+H)+Z+(Shift+S) ; যেমনঃ ভ্রুকটি >ম্ন (ম+ন) = M+G+B ; যেমনঃ নিম্ন >ল্কা (ল+ক+া) = V+G+J+F ; যেমনঃ হাল্কা >শ্ম (শ+ম) = (Shift+M)+G+M ; যেমনঃ শ্মশান >ষ্ক (ষ+ক) = (Shift+N)+G+J ; যেমনঃ পরিষ্কার >ষ্ঠ (ষ+ঠ) = (Shift+N)+G+(Shift+T) ; যেমনঃ সুষ্ঠু >ষ্প (ষ+প) = (Shift+N)+G+R ; যেমনঃ নিষ্পাপ >ষ্ফ (ষ+ফ) = (Shift+N)+G+(Shift+R) ; যেমনঃ নিষ্ফল >ষ্ট্র (ষ+ট+র-ফলা) = (Shift+N)+G+T+Z ; যেমনঃ রাষ্ট্র >ষ্ণ (ষ+ণ) = (Shift+N)+G+(Shift+B) ; যেমনঃ উষ্ণ >ষ্ম (ষ+ম) = (Shift+N)+G+M ; যেমনঃ গ্রীষ্ম >স্থ (স+হ) = N+G+(Shift+K) ; যেমনঃ অবস্থান >স্ত্র (স+ত+র) = N+G+K+Z ; যেমনঃ অস্ত্র >স্ক্রু (স+ক+র+ু) = N+G+J+Z+S ; যেমনঃ স্ক্রু >স্ক্র (স+ক+র) = N+G+J+Z ; যেমনঃ স্ক্রিন >স্প্ল (স+প+ল) = N+G+R+G+(Shift+V) ; যেমনঃ স্প্লিন্টার >হ্ন (হ+ন) = I+G+B ; যেমনঃ বহ্নি >স্ফ (স+ফ) = N+G+(Shift+R) ; যেমনঃ স্ফীত >চ্ছ্ব (চ+ছ+ব) = Y+G+(Shift+Y)+G+H ; যেমনঃ উচ্ছ্বাস >হ্ব (হ+ব) = I+G+H ; যেমনঃ বিহ্বল আশা করি আমার এই লেখাটি আপনাদের সবারই কম বেশি অনেক কাজে দিবে। লেখাটি পড়ার জন্য সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ ও মোবারকবাদ জানিয়ে আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। আসসালামুআলাইকুম।

0 komentar:

Post a Comment